IOU তে The Etiquettes of Seeking Knowledge কোর্সের এসাইনমেন্ট করার জন্য একটা বই পড়ার দরকার হয়েছিল- শায়খ সালমান আল ওয়াদাহ-র PItfalls to the Quest for Knowledge. মাত্র ২০-২৫ পৃষ্ঠার বইটায় লেখক এমন কিছু পয়েন্ট তুলে এনেছেন যেগুলো যে কেউই যখন কেবল দ্বীন নিয়ে পড়া শুরু করবে তক্ষুণি এবং তক্ষুণি পড়ে ফেলা দরকার।

একেবারে প্রথম অধ্যায়েই শায়খ বলতে চাচ্ছেন Knowledge should not be sought for the sake of knowledge. যেকোন নতুন জিনিষের প্রতিই মানুষের কৌতূহল থাকে আর সেটা যদি হয় পছন্দের বিষয় তবেতো কথাই নাই। কিন্তু এই আগ্রহই হতে পারে অনেক বড় একটা চোরাফাঁদ। কারণ, জ্ঞান অর্জন করতে হবে একমাত্র আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য। কিন্তু এই জ্ঞান কেউ যদি “পড়তে ভাল লাগে” ভেবে অর্জন করে তবে সেখানে বিপদ। ব্যাপারটা অনেকটা বিদ’আত এর মত। বিদ’আতীদের কমন লজিক হল-“আমিতো ভাল উদ্দেশ্যেই করছি”। একইভাবে, আমাদের মনে হতে পারে- “আমিতো ইসলামকে ভালবেসেই পড়ছি!” তাহলে কী পড়া যাবে না ?

উত্তর- অবশ্যই যাবে এবং পড়তে হবেও আর ইসলাম নিয়ে পড়তে ভাল লাগাও অবশ্যই দোষের কিছু না। তাহলে কীভাবে বোঝা যাবে যে আমি শুধুই “পড়তে ভাল লাগে” তাই পড়ি নাকি আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য পড়ি ? আমার মনে হয় এর একটা লিটমাস টেস্ট হল- যা পড়ছি নিজেদের জীবনে তার বাস্তবায়ন কতটুকু ? উত্তরে যদি নিজেরাই সন্তুষ্ট হতে পারি তবে আলহামদুলিল্লাহ আর না পারলে বুঝতে হবে কোথাও গলদ আছে, বড়সড় গলদ।

উস্তাদ ইসমাইল কামদার আমাদেরকে বলেছিলেন- প্রতি সেমিস্টার শেষে আমরা যদি আরও বেটার মুসলিম হতে না পারি তবে বুঝতে হবে আমাদের নিয়্যাহতে সমস্যা আছে, আমরা ভুল উদ্দেশ্যে পড়ছি। আসিফ ভাই তাঁর স্ট্যাটাসে লিখেছেন, শায়খ আমীন আশ শানকীতী মাদীনাহ ইসলামিক ইউনিভার্সিটির সার্টিফিকেটকে “মিথ্যা সাক্ষ্য” বলেছেন। কারণ, এই সার্টিফিকেট যে কাউকে ‘আলিম হিসেবে সাক্ষ্য দেয় অথচ তাদের সবাই ‘আলিম নন। আমার মনে হয়, যেকোন ইউনিভার্সিটির সার্টিফিকেটই আমাদের নিজেদের ভুলে “মিথ্যা সাক্ষ্য” হয়ে যেতে পারে।

এই প্রসঙ্গে ইয়াসীর ক্বাদীর আরেকটা কথা না বললেই না। তিনি বলেন, ইয়াং জেনারেশনের অনেকেই যখন প্রথম দ্বীন বুঝতে শুরু করে তখন তারা ভাবে দ্বীনের কাজ করার জন্য স্কলার হতে হবে, পাবলিক লেকচার দিতে হবে, হালাকা-দারস করে মানুষকে দ্বীন বোঝানোই একমাত্র উপায়। কিন্তু বাস্তবে দেখা যায় তাদের অনেকেই চাকরি জীবনে ও সংসারে প্রবেশ করে খেই হারিয়ে ফেলে। তখন আর না যাওয়া হয় বিদেশে ইসলামিক ভার্সিটিতে পড়তে আর না করা হয় নিজের এলাকায় দাওয়াহ। কারণ, বিদেশে পড়ার স্বপ্ন বিভোর হয়ে এতদিন হাতের কাছে সহজলভ্য সুযোগগুলোও গ্রহন করা হয়নি ! এই পর্যায়ে এসে প্রচণ্ড হতাশায় মুষড়ে পড়ে ঐসব তরুণরা। তবে অবশ্যই এর ব্যতিক্রম আছে। কেউ যদি নন-ইসলামিক ব্যাকগ্রাউণ্ড থেকে ইসলামিক স্টাডিজে এসে সত্যিকার ‘আলিম/দাঈ’ হতে পারেন তবে সেটা নিঃসন্দেহে প্রশংসনীয়।

এবার আমার নিজের IOU তে আসার পেছনের ছোট্ট একটা ঘটনা বলে শেষ করি। IOU অফিসে নাবিল ভাইকে বলছিলাম ইসলাম নিয়ে আমার চিন্তা-ভাবনার কথা, কতশত বিরাট বিরাট আশা। সব শুনে নাবিল ভাই শুধু বলেছিলেন-“দেখেন কবির ভাই, আপনি ১০ তলায় উঠতে চাইছেন কিন্তু আমাদের কাছে এখন ৫ তলা পর্যন্ত ওঠার সিঁড়ি আছে। আগে ৫ তলায় ওঠেন তারপর দেখা যাবে।” এই একটা কথায় বুঝে ফেললাম আমার চিন্তায় কোথায় ভুল ছিল।
আল্লাহু আ’লাম।

১১ জানুয়ারী, ২০১৪