বেডকাভার হাদিয়া পেয়েছিলাম এক দ্বীনি বোনের কাছ থেকে, সাদার উপরে ব্লকের কাজ করা, হোস্টেলের সিঙ্গেল বেডে ইউজ করার জন্য। প্রথমে একটু খারাপ লেগেছিলো: ইস! সাদা না হয়ে একটু রঙিন হতো যদি! এই হোস্টেলের মত পাব্লিক প্লেসে সাদা জিনিস খাবার, দাবার, কালি, কলমের দাগ মিলে একাকার হয়ে যাবে….

যাহোক, হাদিয়া বলে কথা, ব্যবহার শুরু করলাম, ‘দাগ লেগে যেতে পারে’ এমন প্রতিটি কাজ সতর্কতার সাথে: দস্তরখানায় খাবার ব্যবস্থাটা আরও জোরালো হলো, কলম কালির ব্যবহারে আরও সচেতনতা…… দু’মাস পেরিয়ে গেছে, সেদিন টের পেলাম: এমেইজিং! দেখার মত একটা দাগও পড়েনি। তাও আবার আমার মত খেয়ালী মানুষ! যত্ন করলে মানুষ কতকিই না পারে?

আর ‘ঈমান’?? সেতো একখানি চাদর কিংবা একখণ্ড কাপড়ের চেয়েও অনেক বেশি মূল্যবান, অনেক বেশিই সেন্সিটিভ। নিত্য কালো দাগ পড়তে থাকা এই ঈমানটিকে রক্ষার জন্য আমরা কতখানি সতর্ক? কতখানি চিন্তিত? কতখানি উদ্বিগ্ন?

সাহাবী উমার রাদিয়াল্লাহু আনহু একদিন উবাই ইবন কা’ব রাদিয়াল্লাহু আনহুকে জিজ্ঞেস করছিলেন: আচ্ছা, বলুন তো, তাক্বওয়া(আল্লাহভীতি) কী জিনিস?
কা’ব বললেন: আপনি কখনো কাঁটাওয়ালা পথে কাপড় পড়ে হেটেছেন কি?
– হু, সেতো অনেকবারই।
– কীভাবে হেটেছেন, মনে করুন তো?
– এমন সতর্কভাবে প্রতিটি পা ফেলেছি, যেন কিছুতেই কাটার ছোঁয়া না লাগে।
– তাক্বওয়ার সংজ্ঞা আসলে এটাই…(অর্থাৎ প্রতি মুহূর্তে হিসেব করে চলা, আল্লাহ অসন্তুষ্ট হচ্ছেন কিনা)

আবূ দারদা রাদিয়াল্লাহু আনহু আরেকটু সহজ করে বলেছিলেন: “তাক্বওয়ার পরিপূর্ণতা হচ্ছে এমন অবস্থা, যাতে বান্দাহ তার রব্বকে ভয় করে প্রত্যেকটি বিষয়ে, হোক তা অনু-পরমাণুর মতই ক্ষুদ্র।”

সম্ভব অনেক কিছুই, প্রচেষ্টাটুকু আমাদের, ক্ববুল করনেওয়ালা আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তা’আলা। আল্লাহ আমাদের জন্য সহজ করুন…..