“কাল বিকেলে তবে একসাথে চা খাচ্ছি…
সেণ্ড বাটনে প্রেস করেই আবার দ্রুত কীবোর্ডে: ….ইন শা আল্লাহ”

শেষটুকু লিখতে গিয়ে বুকের ভেতরটা ধক করে কেপে উঠলো। খুব ছোট্ট একটা কথা, কিন্তু মর্তবায় পুরো বক্তব্যের চেয়ে সহস্রগুণ ভারী। সত্যিই, ‘ইন শা আল্লাহ’ অর্থাৎ ‘যদি আল্লাহ চান’, আর যদি আল্লাহ না চান, আগামীকাল বিকেল কেন এই মুহূর্ত থেকে পাচ মিনিট পর কী হবে, সেটাও আমরা নিশ্চিতরূপে বলতে পারিনা। বাড়ি ফিরতে গিয়েও কতজন না ফেরার দেশে ফিরে গেলো! এক্স্যাম দিতে দিতেও কতজন মৃত্যুর পথে হাটতে শুরু করলো! আমরা আজকের স্থানে দাঁড়িয়ে আগামী দশ বছরের স্বপ্ন বুনে ফেলি, অথচ কেউ জানে না, মৃত্যুর ফাদ কোথায় কখন কীভাবে কার জন্য ওত পেতে আছে…. সুতরাং প্রতিটি ভবিষ্যৎ সম্ভাব্য বাক্যে অবশ্যই সংযুক্ত থাকুক: ‘ইন শা আল্লাহ’।

وَلَا تَقُولَنَّ لِشَيْءٍ إِنِّي فَاعِلٌ ذَلِكَ غَدًا. إِلَّا أَن يَشَاء اللَّهُ وَاذْكُر رَّبَّكَ إِذَا نَسِيتَ.

“আপনি কোন কাজের বিষয়ে বলবেন না যে, সেটি আমি আগামী কাল করব, ‘ইন শা আল্লাহ’ বলা ব্যতিরেকে। যখন ভুলে যান, তখন আপনার পালনকর্তাকে স্মরণ করুন।” [সূরা কাহফ: ২৩-২৪]