বিছানায় আরাম করে হেলান দিয়ে পছন্দের একটা বই পড়ছেন? সাথে এক কাপ চা, আহা! কিংবা ট্রেনে হেলান দিয়ে আধো ঘুম আধো জাগ্রত অবস্থায় বসে আছেন, একটু কফি হলে মন্দ হয়না। ওভাবেই খেতে শুরু করলেন….

আহা! কি করলেন, জানেন? একটা সুন্নাহ বিরোধী কাজ করে ফেললেন। কিভাবে? হেলান দিয়ে খাওয়া আমাদের রাসূলের তরীকা নয়। সুতরাং, আর একটু খেয়াল করে….

উঠে বসুন, বিসমিল্লাহ বলে খাওয়াটা শেষ করুন, এরপর আবার হেলান দিয়ে পড়তে বসুন  । দাঁড়ান দাঁড়ান, আর কয়েকটি কথা শুনে যান….

মহানবী (সাঃ) বলেছেন, ‘‘আমি হেলান দিয়ে খাই না।’’ তিনি হেলান দিয়ে খেতে নিষেধও করেছেন। তিনি (সাঃ) বলেন- لَا تَأْكُلْ مُتَّكِئًا ‘‘হেলান দিয়ে খেয়ো না’’। যেভাবে খেলে হেলান দিয়ে খাওয়া হয়, সেইভাবে খাওয়া মকরূহ। দেওয়াল বা চেয়ারের সাথে পিঠের অথবা মাটির সাথে বাম হাতের হেলান দিয়ে খাওয়া অপছন্দনীয়। যেহেতু অনুরূপ বসা বিনয়ীদের লক্ষণ নয় এবং হেলান দিয়ে খেলে বেশী খাওয়া হয়। আর বেশী খাওয়া ইসলামে বাঞ্ছনীয় নয়। উবুড় হয়ে শুয়ে খাওয়া নিষেধ। রসূল (সাঃ) বলেন
وَأَنْ يَأْكُلَ الرَّجُلُ وَهُوَ مُنْبَطِحٌ عَلَى بَطْنِهِ
‘‘ কোন ব্যক্তি যেন উবুর হয়ে পেটের উপর ভর করে না খায়’’। সুতরাং খেতে বসার সঠিক ও সুন্নাতী বৈঠক হল নিম্নরূপঃ

(ক) দুই হাঁটু ও পায়ের পাতার উপর (নামায পড়ার মত) বসা। অনুরূপ খেতে বসে মহানবী (সাঃ) বলেছিলেন,
إِنَّ اللَّهَ جَعَلَنِي عَبْدًا كَرِيمًا وَلَمْ يَجْعَلْنِي جَبَّارًا عَنِيدًا
‘‘আল্লাহ আমাকে সম্মানিত বান্দা বানিয়েছেন এবং অহংকারী ও উদ্ধত বানাননি।’’
(খ) উভয় পায়ের রলাকে খাড়া রেখে নিতম্বের উপর বসা। মহানবী (সাঃ) এরূপ বসে খেজুর খেয়েছেন।
ডান পা-কে খাড়া রেখে বাম পায়ের উপর বসে খাওয়া চলে। অবশ্য এরূপ বসে খাওয়া সুন্নাত হওয়ার ব্যাপারে বর্ণিত হাদীস সহীহ নয়।
সতর্কতার বিষয় যে, দুই পা-কে গুটিয়ে আড়াআড়িভাবে রেখে হাঁটু ভাঁজ করে (বাবু হয়ে) বসে খাওয়াকেও অনেকে হেলান দিয়ে খাওয়ার মধ্যে গণ্য করেছেন। অবশ্য অসুবিধার কারণে অথবা কাপড় খারাপ হওয়ার ভয়ে সেভাবে বসে খাওয়া হারামও নয়।

তথ্যসূত্র: খানা খাওয়ার আদব: আব্দুল হামীদ ফাইযী