গতকাল ভাইয়া ফোনে বলছিলো: বল তো, বিয়ের আগে ফোনে কথা বলার বৈধতা নিয়ে কোন শায়েখ ফতোয়া দিয়েছে নাকি? প্র‍্যাক্টিসিং- ননপ্র‍্যাক্টিসিং নির্বিশেষে আজকাল বিয়ের আগে সবাই যেভাবে ফোনে কথা বলার স্টাইল চালু করেছে, তাতে মনে হচ্ছে এটা জায়েয হয়ে গেছে। ইভেন ভালো মানের দ্বীনি ভাই বোনেরাও….

শুনে আসলেই টনক নড়লো আরেকবার, আমাদের দ্বীনি ভাই বোনদেরও টনকে নাড়া দেয়া দরকার বলে মনে হলো। মোটা দাগে দুটো কথা বলি:

ইসলামে ইংগেজমেন্ট, being engaged, in a relationship, fiancee বলে কোন টার্ম নেই, হয় ‘বিবাহিত’ অথবা ‘অবিবাহিত’। সুতরাং, কারো সাথে আপনি বিয়ের জন্য কমিটেড হন অথবা ইংগেজমেন্ট হোক কিংবা আপনার বাবা মা ফোর্টিন জেনারেশন একমত হয়ে বিয়ে ঠিক করুক, বিয়ে পড়ানোর আগ মুহূর্ত পর্যন্তও মানুষটি আপনার ‘গাইরে মাহরাম’, আর দশজন গাইরে মাহরামের মত সব হুকুম তার জন্যেও প্রযোজ্য: একাকী কথা বলা, দেখা করা, ঘুরতে যাওয়া, নিজেরা দুইজন বিয়ের শপিং করা… সব হারাম, কোন ডাউট নেই। (তবে মাহরাম কিংবা তৃতীয় পক্ষের উপস্থিতিতে প্রয়োজনীয় কথা বলা যেতে পারে, ইনশাআল্লাহ)

রাসূল (সা) বলেছেন, “মানুষ তার সমগ্র ইন্দ্রিয়ের সাহায্যে জিনা করে। দেখা হচ্ছে চোখের জিনা,ফুঁসলানো কণ্ঠের জিনা, তৃপ্তির সাথে কথা শোনা কানের জিনা, হাত দিয়ে স্পর্শ করা হাতের জিনা, কোনো অবৈধ উদ্দেশ্যে পথ চলা পায়ের জিনা, এভাবে ব্যভিচারের যাবতীয় ভূমিকা যখন পুরোপুরি পালিত হয়, তখন লজ্জাস্থান তার পূর্ণতা দান করে অথবা পূর্ণতা দান থেকে বিরত থাকে।” [বুখারি, মুসলিম ও আবু দাউদ]

সুতরাং আমরা দেখতে পাচ্ছি, যিনা ৭ টি জিনিস দিয়ে হয়: মন , চোখ, জিহ্বা, কান, হাত, পা ও গোপনাংগ। আর তা অন্যান্য গাইরে মাহরামের মত বাগদত্তার ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য।

হ্যা, এটা ঠিক, আমরা মানুষ, নাফসের ধোকায়, শয়তানের ফাদে পড়ে এই সময়টাতে চেষ্টার পরেও আমাদের কিছু পদস্খলন হয়ে যায়: কিন্তু আমরা যেন সেটার জন্য আনন্দিত না হয়ে লজ্জিত হই, আল্লাহর কাছে অনুতপ্ত হয়ে ক্ষমা প্রার্থণা করি, সেই গুনাহ পাব্লিকলি প্রদর্শন করে আমার পাশের আর দশজনকে ভুল মেসেজ না দিই যে:
অমুক দ্বীনি ভাই/আপু তো এটা প্রকাশ্যে করছে, সুতরাং এটা জায়েয।

আর বিয়ের আগে কিংবা বিয়ের সময়টাতে যত বেশি হারাম এভয়েড করতে পারবেন, বিয়ের পরেও দ্বীনের পথে চলা তত বেশি সহজ হবে, কারণ জানেন তো? একটি হারাম কাজ পরবর্তী হারামের জন্য নিয়ামক হিসেবে কাজ করে। আল্লাহ তা’আলা আমাদের জন্য সহজ করুন, আমাদের অক্ষমতাগুলো মাফ করুন।