আমাদের দেশে একটা কথা প্রায়ই শোনা যায়- সব জায়গায় ধর্ম টেনে আনবেন না!

কথাটা আসলে উল্টো। আধুনিক সেক্যুলার রাষ্ট্র একে একে সব জায়গা থেকে ধর্মকে ধাক্কা দিয়ে সরিয়েছে। সেক্যুলার রাষ্ট্রের আবির্ভাবের আগে এই জায়গা গুলো ধর্মের ছিল। সেকুলারিজম সমাজ ও রাষ্ট্র থেকে ধর্মকে তো তো সরিয়েছেই, এখন হস্তক্ষেপ করছে ব্যক্তিগত জীবনে ধর্ম পালনের উপরও। ফতোয়া দিচ্ছে ধর্মের বিভিন্ন বিষয়ে।

তাই সব জায়গায় ধর্ম টেনে আনবেন না কথাটা অনেকটা দখলদার ইসরাইলের রেটরিকের মত। দেখবেন ফিলিস্তিনিদের উপর গণহত্যা চালানোর সময় ঈস্রায়েলি আর্মি ও সরকারের বিভিন্ন মুখপাত্র বলছে, ‘ইস্রায়েলের নিজের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখার অধিকার আছে। ইস্রায়েলের অধিকার আছে নিজেকে রক্ষা করার।’ যেন আগ্রাসন চালাচ্ছে ফিলিস্তিনের মুসলিমরা আর নিরীহ শান্তিকামী ইসরাইল কেবল নিজেকে রক্ষা করছে! অথচ বাস্তবতা হলো ইউরোপ থেকে আসা ইহুদীরা ইস্রায়েল নামের এ মাটি ছিনিয়ে নিয়েছে, দখল করে রেখেছে মুসলিমদের পবিত্র স্থান মসজিদ আল আকসা এবং মুসলিমদের উপর গণহত্যা চালিয়ে আসছে সাত দশকের বেশি সময় ধরে। এত কিছুর পর মুসলিমরা যখন মসজিদ এবং মাটি ফিরিয়ে নিতে চায়, দখলদারি আগ্রাসনের বিরুদ্ধে আত্মরক্ষার চেষ্টা করে তখন ইসরাইল বলে- ইসরাইলের অধিকার আছে নিজেকে রক্ষা করার! সব জায়গায় ধর্ম টেনে আনবেন না- কথাটা ইসরাইলের এই নিজেকে রক্ষা করার অধিকারের কথা মতো। এমন এক মুখস্থ বুলি যা শব্দের চাতুর্যপূর্ণ ব্যবহারের মাধ্যমে বাস্তবতাকে উল্টে দেয়।

প্রশ্নটা সব জায়গায় ধর্ম আনার না, প্রশ্ন হলো আপনারা সব জায়গা থেকে ধর্মকে সরাতে চান কেন? আর যদি চান-ই, তাহলে সেটা সরাসরি স্বীকার করেন না কেন??

~ পূজারি ও পূজিত (চিন্তাপরাধ)