প্রতিবার ক্যাম্পাসে নতুন বর্ষের ছাত্রীরা আসে, আর একবার করে মনে পড়ে যায় ক্যাম্পাসে নিজের প্রথম দিনটির কথা। পাচ বছরের হোস্টেল জীবনে অনেক কিছু শিখেছি, ভুলেছি, তবে যে জিনিসটি আজও ভুলতে পারিনি, তা হলো, জুনিয়রদের দিকে তাকিয়ে দেয়া কিছু বড় আপুর স্মিতহাস্যের উপহার: “আসসালামু ‘আলাইকুম” 

‘সালাম’ যে এত সুন্দর একটা জিনিস, তা বোধহয় জানাই হোতো না আমার, আমাদের। কি করে একগাল মিষ্টি হাসি হেসে সালাম দিতে হয়, ছোট বড় সবাইকে দেওয়া যায়, এতে কারও সম্মান নষ্ট হয়না বরং ভালোবাসাই বাড়ে কেবল, তার প্র‍্যাক্টিক্যাল শেখা এখানেই। অনেক অনেক দূরে চলে গেছেন অনেক শ্রদ্ধাভাজন, ভালোবাসাটুকু এখনও ভেতরেই আছে; চলে যাওয়ার ঘণ্টাধ্বনি বাজে, ভালোবাসাগুলো পিছু ডাকে এখনও….♥

“তোমরা ততক্ষণ পর্যন্ত জান্নাতে প্রবেশ করতে পারবেনা, যতক্ষণ পর্যন্ত তোমরা পরিপূর্ণ ঈমানদার হতে পারবে না। আর ততক্ষণ পর্যন্ত তোমরা পরিপূর্ণ ঈমানদার হবে না, যতক্ষণ পর্যন্ত তোমরা একে অপরকে ভালবাসবে না, আর আমি কি তোমাদেরকে এমন একটি জিনিস বতলে দেব যা করলে তোমরা পরস্পর পরস্পরকে ভালোবাসবে? এ কথার উত্তরে তিনি বললেন:
أَفْشُوا السَّلامَ بَيْنَكُمْ.
অর্থাৎ, “তোমরা বেশি বেশি করে সালামের প্রসার করো”। [সহীহ মুসলিম]